শনিবার ১ অক্টোবর ২০২২
      Beta

চতুর্থ বউয়ের সঙ্গেও ছাড়াছাড়ি, ক্ষোভে ঘটককে কুপিয়ে হত্যা

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১০:২৩:০০ অপরাহ্ন | বাংলাদেশ

তৃতীয় বউ চলে যাওয়ার পর একই ঘটক আব্দুল জলিলের মাধ্যমে চতুর্থ বার বিয়ের পীড়িতে বসেন আলমাস (২৫) নামে এক যুবক। ২০১৯ সালে বিয়ে করা ওই বউও বেশিদিন তার সঙ্গে সংসার করেননি। গত বছর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এভাবে বারবার বউ চলে যাওয়ায় চাপা ক্ষোভে ঘটক আব্দুল জলিলকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন তিনি।

 

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার দিগড় ইউনিয়নের মানাজী (মাইদার চালা) গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। ওই গ্রামের শহিদুলের ছেলে ঘাতক আলমাস (২৫) এ ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

গত ২০১৯ সালে একই উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের প্যাঁচার আটা গ্রামে আলমাসকে বিয়ে করিয়ে আনেন। সেই ঘরে এক কন্যা সন্তান রয়েছে। এর দুই বছর পর বিগত ২০২১ সালে এই বিয়েও ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এ নিয়ে আলমাসের ভিতরে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করে।

নিহতের ভাগ্নে আব্দুল বাছেদ ও স্থানীয়রা জানান, মাইদার চালা গ্রামের শহিদুলের ছেলে আলমাস স্থানীয় একটি করাত কলে কাজ করেন। আলমাস এর আগেও ৩টি বিয়ে করেন। কিন্তু একটি বিয়েও বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। পরে ঘটক আব্দুল জলিলের মাধ্যমে (ঘটকালীতে) বিগত ২০১৯ সালে একই উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের প্যাঁচার আটা গ্রামে আলমাসকে বিয়ে করিয়ে আনেন। সেই ঘরে এক কন্যা সন্তান রয়েছে। এর দুই বছর পর বিগত ২০২১ সালে এই বিয়েও ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এ নিয়ে আলমাসের ভিতরে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করে।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) জোহরের নামাজ শেষ করে ঘটক আব্দুল জলিল, আলমাসের দাদী আয়াতন বেগমের ঘরে পান খেতে বসে। এ সময় আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা আলমাস ঘরে ঢুকে বউ এনে দেয়ার কথা বলে ধারালো দা দিয়ে এলোপাথারী মাথায় ও গলায় কুপ দিলে ঘটনাস্থলে ঘটক আব্দুল জলিলের মৃত্যু হয়। নিহতের মাথা এবং গলায় আঘাতের চিহ্ন আছে।

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজহারুল ইসলাম সরকার  জানান,  এ ব্যাপারে থানায় এখন পর্যন্ত কোনা অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পাওয়ার মামলা নেওয়া হবে। আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানান।