সোমবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৩
      Beta
আওয়ামী লীগের ইতিহাস হচ্ছে সন্ত্রাস। তারা সন্ত্রাস করে ক্ষমতায় থাকতে চায়। যখনই ক্ষমতা আসে তারা সন্ত্রাস করে। সরকারের সময় হয়ে গেছে, এবার তাদের যেতে হবে: মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: সংগৃহীত

বিভাগীয় শহরে ৪ ফেব্রুয়ারি বিক্ষোভ সমাবেশ করবে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশের সময় : বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ ০৭:১৯:০০ অপরাহ্ন | বাংলাদেশ

কারাগারে থাকা দলীয় নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি, বিদ্যুৎ এবং নিত্যপণ্যের দাম কমানোসহ ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আসছে ৪ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী বিভাগীয় সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত এক সমাবেশে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ ঘোষণা দেন।

‘২৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবসে’ ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবিতে' ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখা বিএনপির যৌথ আয়োজনে  এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

স্বাধীনতা যুদ্ধের দাবিদার আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ও চেতনাকে ধ্বংস করেছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “এই ২৫ জানুয়ারি তারা গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছিল। নতুন প্রজন্ম এই ইতিহাস জানে না। তা তারা মুছে ফেলেছে। কেনো গণতন্ত্র হত্যা করেছেন, আওয়ামী লীগের কাছে জিজ্ঞাস করলেই তাদের গায়ে জ্বালা ধরে। উল্টো বলে বিএনপি নাকি গণতন্ত্র নষ্ট করেছে।”

বাকশালের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, “সেদিন আপনাদের (আওয়ামী লীগ) একদলীয় বাকশাল কায়েমের প্রতিবাদে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল ওসমানী, ব্যারিস্টার মঈনুল সরকার থেকে পদত্যাগ করেছিল। পল্লীকবি জসিমউদ্দীন তার পদক প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন।“

‘আওয়ামী লীগ কখনই গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না উল্লেখ করে বিএনপির অন্যতম এই শীর্ষ নেতা আরও বলেন, “তারা মুখে বলে একটা করে উল্টোটা। আওয়ামী লীগের ইতিহাস হচ্ছে সন্ত্রাস। তারা সন্ত্রাস করে ক্ষমতায় থাকতে চায়। যখনই ক্ষমতা আসে তারা সন্ত্রাস করে। সরকারের সময় হয়ে গেছে, এবার তাদের যেতে হবে।’

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, “তারা (আওয়ামী লীগ) দেশটাকে পৈতৃক সম্পত্তি মনে করে। এই মানুষগুলো তাদের প্রজা, তাই যা খুশি তাই করে। আওয়ামী লীগ আবারও নির্বাচনের তামাশা করে ক্ষমতায় থাকতে যেতে চায়। সেই নির্বাচন কি হতে দেবেন? অবশ্যই না।”

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা বিএনপির আহ্বায়ক আবদুস সালামের সভাপতিত্বে এবং দক্ষিণের সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনু ও উত্তরের সদস্য আমিনুল হকের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. মঈন খান, বেগম সেলিমা রহমান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, বিএনপির ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপি নেতা ফজলুল হক মিলন, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী।